বন্ধ করতে হবে ইরাকের বিক্ষোভে প্রাণহানি
বন্ধ করতে হবে ইরাকের বিক্ষোভে প্রাণহানি

বন্ধ করতে হবে ইরাকের বিক্ষোভে প্রাণহানি

গত পাঁচদিনে ইরাকে সরকারবিরোধী বিক্ষোভের পর জাতিসংঘ সহিংসতা বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে। বিক্ষোভে প্রায় ১০০ লোক নিহত হয়েছেন।

কাজেই এই অনর্থক প্রাণহানি বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে বিশ্বের শীর্ষ সংস্থাটি। চাকরির সংকট, নিম্নমানের সরকারি পরিষেবা ও সরকারি কর্মকর্তাদের সীমাহীন দুর্নীতির প্রতিবাদে গত মঙ্গলবার থেকে রাজধানী বাগদাদসহ কয়েকটি নগরীতে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে।

বিক্ষোভে গত পাঁচ দিনে অন্তত ৯৯ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরো প্রায় চার হাজার মানুষ বলে বিবিসির খবরে জানানো হয়েছে। জাতিসংঘের ইরাক বিষয়ক মিশনের প্রধান জেনিন হেনিস-প্লাচার্ট বলেন, পাঁচদিন ধরে লোকজন মারা যাচ্ছে এবং আহত হচ্ছে: এ ধারা অবশ্যই থামাতে হবে।

যারা এই প্রাণহানির পেছনে দায়ী তাদের অবশ্যই বিচারের আওতায় আনা উচিত বলেও মত প্রকাশ করেন তিনি। বিক্ষোভকারীদের অজ্ঞাত স্নাইপাররা গুলি করছেন বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

বলা হয়েছে, আবাসিক এলাকাগুলোতে দায়ীদের খোঁজে তারা তল্লাশি চালিয়েছেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পূর্ব বাগদাদে ব্যাপক কাঁদানে গ্যাস ও তাজা গুলি ছুড়ে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দিয়েছে নিরাপত্তা বাহিনী।

বিক্ষোভকারীরা মূলত তরুণ। কোনো রাজনৈতিক কিংবা ধর্মীয় গোষ্ঠীর সঙ্গে তাদের কোনো সংযোগ নেই বলে তারা দাবি করছেন। রাজনীতিবিদদের দেয়া প্রস্তাবও প্রত্যাখ্যান করেছেন তারা। শনিবার নাসিরিয়া শহরে বিক্ষোভকারীরা ছয়টি ভিন্ন রাজনীতিবিদদেরও প্রধান কার্যালয়ে আগুন ধরিয়ে দেয়।



Published: 2019-10-06 22:15:13